শূন্য থেকে আজকে যারা কোটিপতি

এই পৃথিবীতে সবাই প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করছে বেঁচে থাকার লড়াই করে যাচ্ছে । এর মধ্যে কিছু মানুষ সফল হয়েছে এবং কিছু মানুষ সফল হতে পারে নি। অসফল লোকরা আবার ও জীবন যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছে এবং পরে তারাই বিশ্বের কাছে উদাহরন হয়ে উঠেছেন। কঠোর পরিশ্রম এবং শত চেষ্টার পর তারা এ সাফল্য অর্জন করেছে। আজকে আপনাদের সাথে সেই সকল লোকদের এবং তারা কি কারনে বিখ্যাত সেই সম্পর্কে আলোচনা করব। শুন্য থেকে তারা কিভাবে বিশ্বের সেরা ধনীদের তালিকায় নাম লিখিয়ে নিয়েছেন।

 

Jan Koum: WHATSAPP এর সহ-প্রতিস্টাতা এবং সিইও। whatsapp প্রতিস্টার আগে তিনি খুব ছোট একটা চাকরি করতেন। এক সময় ইউক্রেন থেকে ভাগ্য পরিবর্তন এর জন্য পাড়ি জমান আমেরিকা সেই শুন্য হাতে আসা মানুষটি আজ whatsapp এর কল্যাণে বিশ্ব সেরা ধনীদের মধ্যে একজন। তার সম্পদের পরিমান প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলার।

 

Jack Ma: তিনি ছিলেন একজন সামান্য ইংরেজি শিক্ষক। তার জন্ম এবং বেড়ে ঊঠা চীনে। ১৯৯৫ সালে আমেরিকা এসে প্রথম ইন্টারনেট সম্পর্কে জানতে পারেন। তারপর নিজ দেশে ফিরে গিয়ে ১৯৯৯ সালে তিনি প্রতিস্টা করেন আলিবাবা। আলিবাবা বহু আগে থেকেই দুরন্ত গতিতে আগিয়ে যাচ্ছে । বর্তমানে তার সম্পদের পরিমান প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলার এর মতো। বিশ্বের সেরা ধনীদের তালিকায় আছেন তিনি।

 

Ingvar Kamprad: সুইডেন এর একটি ফার্মে বেড়ে উঠেছিলেন তিনি। পেন্সিল, গ্রিটীং কার্ড ইত্যাদি নিয়ে শুরু তার প্রচেষ্টা। তার সেই ছোট প্রচেষ্টা আজ ৩.৯ বিলিয়ন ডলারের IKEA কোম্পানিতে পরিণত হয়েছে। আর তিনি হয়েছেন বিশ্বের সেরা ধনীদের একজন।

 

Howard Schultz:  তিনি এক সময় দরিদ্রদের জন্য তৈরি করা বাড়িতে থাকতেন। জীবনের অনেক প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে তিনি বড় হয়েছেন তারপর সেখানেই তিনি স্টার বাক্স জাউ নামে একটি কফিশপ দেন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এর ১৬ টির ও বেশি শাখা রয়েছে। স্টার বাক্স এর বর্তমান মূল্য ২.১ বিলিয়ন ডলার।

 

Shahid Khan: আমেরিকা গিয়ে বাসন মাজতেন পাকিস্তানের শাহিদ খান। সেখান থেকেই তিনি ফ্লেক্স-এন-গেট নামের একটি কোম্পানির মালিক হয়েছেন যার বর্তমান মূল্য ৪.৪ বিলিয়ন ডলার।

 

Do Won Chang: একটি গ্যাস স্টেশন এ তত্তাবধায়ক হিসেবে কাজ করতেন ডো অন। কোরিয়া থেকে ১৯৮১ সালে আমেরিকায় আসার ৩ বছর পর একটি কাপড়ের দোকান দেন যার নাম ফরএভার২১। যার মূল্য ৫.২ বিলিয়ন ডলার।

 

Ralph Lauren: ব্রুক ব্রাদারস এ ক্লার্ক হিসেবে কাজ করতেন রালফ লরেন। ১৯৬৭ সালে তিনি পুরুষদের পোশাক এ টাই কে সংযুক্ত করেন এবং পোলো নামের একটি কোম্পানি প্রতিস্টা করেন যার বর্তমান মূল্য ৭.৮ বিলিয়ন ডলার।

 

Larry Ellison: মা মারা যাওয়ার পর খালার কাছে বড় হয়েছেন তিনি। ১৯৭৭ সালে তিনি প্রতিস্টা করেন তার সফটওয়্যার ডেভলাপমেন্ট প্রতিস্টান ওরাকল। আজ তিনি ৫৭ বিলিয়ন ডলারের মালিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *